লকডাউনে নিরাপদ সেক্স, ডিজিটাল লাভারদের জন্য কিছু পরামর্শ!

অনলাইন ডেস্ক অনলাইন ডেস্ক

সৃষ্টিবার্তা ডটকম

প্রকাশিত: এপ্রিল ১৮, ২০২০

করোনাভাইরাস থেকে বাঁচতে বিশ্বজুড়ে চলছে লকডাউন। সমগ্র মানবজাতির প্রায় অর্থেক এক কথায় বলতে গেলে গৃহবন্দি জীবন কাটাচ্ছে। লকডাউনের সহজ অর্থ জরুরি প্রয়োজন ছাড়া সব কিছুই বন্ধ থাকবে। এ অবস্থায় বদলে গেছে জীবনযাপন। লকডাউনে তৈরি হয়েছে নতুন নতুন বিধি-নিষেধ। গৃহবন্দি থাকতে থাকতে মানসিক ট্রমায় ভুগছেন অনেকেই। কবে স্বাভাবিক হবে বিশ্ব বলতে পারে না কেউ।

এমতাবস্থায় অনেক প্রেমিক-প্রেমিকাই অনলাইনে সেক্সের আনন্দ খুঁজে নিচ্ছেন। তারা বিভিন্ন ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করে আনন্দ খুঁজছেন। কিভাবে অনলাইন সেক্সে নিরাপদ থাকবেন সে বিষয়ে ডিজিটাল লাভারদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ দিয়েছেন আর্জেন্টিনার একজন কর্মকর্তা।

দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ডাক্তার জোস বারলেটটা একটি টেলিভিশন সম্প্রচারে বলেছেন যে, যৌনতার পরে অবশ্যই লোকদের হাত ধোয়ার দরকার। সেটা ব্যক্তিগতভাবেই হোক বা ডিজিটাল মাধ্যমগুলোতে হোক।

ডাক্তার বলেছিলেন, ‘যৌন সম্পর্কের পরে, হস্তমৈথুনের পরে বা ভার্চুয়াল লিঙ্গ পরার পরে আপনার হাত ধুয়ে ফেলা আগের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কিবোর্ড, টেলিফোন, সেক্স টয় এবং আপনি অন্য যা কিছু যা ব্যবহার করতে পারেন, সেই জিনিসগুলো অন্যকেউ স্পর্শ করছে কি-না বা ব্যবহার করছে কিনা সেটা অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে। অন্যকেউ ব্যবহার করলে জীবাণুমুক্ত করে নিতে হবে। এটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।’

করোনভাইরাস লকডাউন ডেনমার্ক থেকে কলম্বিয়া পর্যন্ত দেশে দেশে সেক্স টয় বিক্রি বেড়ে গেছে। আর্জেন্টিনায় ২০ মার্চ থেকে লকডাউন শুরু হয়েছে এবং এটি কমপক্ষে ২০ শে মার্চ থেকে শুরু হয়েছিল এবং কমপক্ষে ২৬ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ২ হাজার ৬৬৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ভাইরাসটির কারণে মৃত্যু হয়েছে ১২২ জনের।

দেশটির মধ্য-বামপন্থী রাষ্ট্রপতি আলবার্তো ফার্নান্দেজ, মহামারিটির প্রসারকে কমিয়ে আনার লক্ষ্যে কঠোর ব্যবস্থা চাপিয়ে দিয়েছেন। ল্যাটিন আমেরিকায় প্রথম দেশ হিসাবে আর্জেন্টিনায় লকডাউন জারি করে ব্যপক প্রশংসিত হয়েছেন। লকডাউনের মাধ্যমে সংক্রমণের গতি অনেকটাই কমাতে পেরেছেন বলে অনেকে মনে করছেন।

শুক্রবার এক রেডিও সাক্ষাৎকারে ফার্নান্দেজকে যৌনতা ও স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে মন্ত্রণালয়ের দেওয়া নির্দেশনা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হয়েছিল। রাষ্ট্রপতি বলেছেন, ‘স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় যা বলেছে সেটা মেনে চলুন, এ সম্পর্কে আমি আমার নিজস্ব মতামত উপস্থাপন করব না।’

সূত্র- টাইমস লাইভ।