আজ-  ,
basic-bank
সংবাদ শিরোনাম :

সৌদি যুবরাজকে কি সরিয়ে দেওয়া হচ্ছে?

শোনা যাচ্ছে, সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের এক ভাই আহমেদ বিন আবদেল আজিজ যুক্তরাজ্যে স্বেচ্ছা-নির্বাসন কাটিয়ে অতি সম্প্রতি দেশে ফিরেছেন। বিশ্লেষকদের ধারণা, তার প্রত্যাবর্তন গুরুত্বপূর্ণ, কারণ অনেকে মনে করেন তিনি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের স্থলাভিষিক্ত হতে পারেন।

ইস্তাম্বুলে সৌদি সাংবাদিক জামাল খাশোগি খুন হওয়ার পর থেকেই চাপে রয়েছেন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। ঠিক সেই মুহূর্তে যুবরাজ আহমেদ বিন আবদেল আজিজ হঠাৎ স্বেচ্ছা-নির্বাসন থেকে সৌদি আরবে ফিরেছেন।

পশ্চিমা বিশ্লেষকদের মতে, সৌদি রাজপরিবারে তিনি এমন একজন ব্যক্তি যিনি সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদের জায়গা নিতে পারেন। যদিও রিয়াদে তার প্রত্যাবর্তন সম্পর্কে সৌদি কর্তৃপক্ষ সরকারিভাবে কিছু নিশ্চিত করেনি।

কী শর্তে তিনি দেশে ফিরেছেন তাও স্পষ্ট নয়। তবে ধারণা করা হচ্ছে, তার নিরাপত্তার ব্যাপারে নিশ্চয়তা পেয়েই তিনি দেশে ফিরেছেন।

এদিকে বিবিসির সংবাদদাতা ফ্রাংক গার্ডনার বলছেন, যুবরাজ আহমেদ বিন আবদেল আজিজের দেশে ফেরার খবরটি সংবাদমাধ্যমে জানানো হয়েছে সৌদি রাজপরিবারের সূত্র থেকেই। এ থেকে আভাস পাওয়া যায় যে, ওই অঞ্চলে এখন প্রিন্স মোহাম্মদের ভবিষ্যৎ নিয়ে ব্যক্তিগত স্তরে ব্যাপক বিতর্ক চলছে।

এর কারণ, সম্প্রতি ইস্তাম্বুলের সৌদি কনস্যুলেটের ভেতরে সাংবাদিক জামাল খাশোগি খুন হবার ঘটনা। জানা যায়, তিনি সৌদি রাজপরিবারের কঠোর সমালোচক ছিলেন।

সৌদি আরব বলেছে, নিয়ম ভঙ্গকারী একদল এজেন্ট তাকে হত্যা করেছে এবং সৌদি যুবরাজের সাথে এ ঘটনার কোনো সম্পর্ক নেই। এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে কিছু লোককে গ্রেপ্তারও করা হয়েছে।

এদিকে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রেসেপ তায়েপ এরদোয়ান বলেছেন, সৌদি আরবের প্রধান কৌঁসুলিকে খুঁজে বের করতে হবে- জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের নির্দেশ কে দিয়েছিল এবং হত্যার জন্য ১৫ সদস্যের একটি দলকে কে ইস্তাম্বুলে পাঠিয়েছিল।

এ ঘটনার পরপরই সৌদি আরবের প্রধান সরকারি কৌঁসুলি এখন ইস্তাম্বুল সফর করছেন।

জামাল খাশোগির হত্যাকাণ্ডের ঘটনা তদন্তে বিদেশি বিশেষজ্ঞদের যোগ দিতে অনুমতি দেওয়ার জন্যে সৌদি আরবের প্রতি আহবান জানিয়েছে জাতিসংঘ।

সংস্থাটির মানবাধিকার বিষয়ক প্রধান মিশেল ব্যাশেলেট বলেছেন, খাশোগির মৃতদেহ কোথায় আছে, সৌদি কর্তৃপক্ষকে সেটা খোলাসা করতে হবে। তার মৃতদেহে ফরেনসিক পরীক্ষা করা হলে বহু প্রশ্নের উত্তর পাওয়া যাবে বলে তিনি মনে করেন। খবর : বিবিসি বাংলা।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।