আজ-  ,
basic-bank
সংবাদ শিরোনাম :

জাবিতে ছাত্রলীগের উদ্যোগে পাওয়া যাচ্ছে বিশুদ্ধ পানি “মুক্তা”

সাঈদ বিন ইসলাম, জাবি প্রতিনিধি; আজ (সোমবার, ২৯ এপ্রিল, ২০১৯ ইং) থেকে সমগ্র জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের উদ্যোগে বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল দোকান ও ক্যাফেটেরিয়ায় পাওয়া যাচ্ছে ন্যাচারাল ড্রিংকিং ওয়াটার ‘মুক্তা’ ।

উল্লেখ্য, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে গাজীপুরে একটি সরকারি ড্রিংকিং ওয়াটার কারখানা রয়েছে। এর বিশেষত্ব হল এ কারখানা প্রতিবন্ধীদের দ্বারা পরিচালিত হয়। আর এখান থেকে যে লাভ হয় তার পুরো অংশই প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে ব্যয় করা হয়। এছাড়াও গণভবন ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সহ সরকারি সকল ভবন গুলোতে এই পানির বহুল ব্যবহার নিশ্চিত করার নির্দেশ দেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রত্যক্ষদর্শীর সূত্র হতে জানা যায়, ‘মুক্তা’ পানির বিপণন এবং সরবারহের সার্বিক প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধায়নে ছিলেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি জুয়েল রানা। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আহবানে সাড়া দিয়ে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্যোগে,বিশ্ববিদ্যালয়ের হল-ক্যান্টিন এবং অন্যান্য সকল দোকানে পাওয়া যাচ্ছে দেশের সবচেয়ে নিরাপদ ও বিশুদ্ধ এই পানি। প্রতিবন্ধীদের কল্যাণের লক্ষ্যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ এই উদ্যোগে শরীক হয়।
এছাড়াও প্রতিটি দোকানে এই পানি পৌঁছে দেয়ার জন্য নিঃস্বার্থভাবে শ্রম এবং মেধার সমন্বয় ঘটিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক কৌশিক রহমান শিমুল, আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক কে.এম সানজিদ ফেরদৌস এবং সহ-সভাপতি নাহিদ হোসেনসহ প্রমুখ নেতাকর্মী।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মো. জুয়েল রানা বলেন, ‘এই পানির লভ্যাংশ ব্যয় হবে প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে। তাই আমাদের উচিত “মুক্তা” পানি ব্যবহার করে তাদের কল্যাণে এগিয়ে আসা।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক কৌশিক রহমান শিমুল বলেন,‘জাবি ছাত্রলীগ প্রতিটি দোকানে এই পানি পৌঁছে দেয়ার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করছে। এছাড়াও “মুক্তা” পানির প্রচার ও সর্বোচ্চ ব্যবহারে সচেষ্ট থাকবে জাবি ছাত্রলীগ।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।