বিড়ি শিল্পের উপর অধিক করারোপ প্রত্যাহারসহ ৮দফা দাবিতে সড়ক অবরোধ

শেরপুর প্রতিনিধি; প্রস্তাবিত বাজেটে বিড়ি শিল্পের উপর অধিক হারে করারোপ প্রত্যাহারসহ ৮দফা দাবী আদায়ের লক্ষে শেরপুরে বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশন শেরপুর – ঢাকা মহসড়ক আজ ১৮জুন দুপুরে ১ঘন্টা অবরোধ করে রাখে। নবীনগর বাসস্ট্যান্ডের কাছে হাজার হাজার শ্রমিক সড়ক অবরোধশেষে জেলা হাসপাতাল রোডে মানব বন্ধন করে।

এর আগে গতকাল ১৭জুন শহরের নারায়ণপুরস্থ রশিদা বিড়ির ফ্যাক্টরি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। অবরোধ ও মানব বন্ধনে বক্তব্য রাখেন জেলা বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান ঠান্ডা ও শেরপুর জেলা বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের সহ. সাধারণ সম্পাদক মোঃ নাসির উদ্দিন প্রমুখ। এসময় স্থানীয় ও কেন্দ্রীয় শ্রমিক নোতারা বক্তব্য রাখেন।
শ্রমিক নেতারা বলেন, ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে বিড়ির উপর অযৌক্তিকভাবে প্রতিযোগী কমদামী সিগারেটের চেয়ে ৪ গুণ বেশি শুল্ক নির্ধারণ করায় আবারও বিড়ি ফ্যাক্টরিগুলো বন্ধের উপক্রম হবে।

প্রস্তাবিত বাজেটে বিড়িতে ২৪.২০ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি করা হলেও কমদামী সিগারেটে ৫.৭১ শতাংশ শুল্ক বৃদ্ধি করা হয়েছে। বিড়ি ও সিগারেটে কর নির্ধারণে বৈষম্য চরম অমানবিক। এজন্য বিড়ি শ্রমিক ফেডারেশনের উদ্যোগে সারাদেশের ন্যায় ১৮জুন শেরপুর জেলা শহরেও হাজার হাজার বিড়ি শ্রমিক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করে। এসময় নেতৃবৃন্দ তাদের ঘোষিত ৮দফা দাবীতে বিড়িকে কুটির শিল্প হিসেবে ঘোষনা এবং অতিরিক্ত কর প্রত্যাহার এবং বিদেশী সিগারেটের ওপর অধিকহারে করারোপ করার দাবী করেন।

গতকাল ১৭জুন সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের তরফ থেকে বক্তব্য রাখেন প্রেসকাবের সভাপতি শরিফুর রহমান, সাবেক সভাপতি রফিকুল ইসলাম আধার, সাধারণ সম্পাদক মেরাজ উদ্দিন প্রমুখ।

ওইসময় রশিদা বিড়ি ফ্যাক্টরির জিএম জাহাঙ্গীর আলম, পিএ মোখলেসুর রহমান রিপনসহ স্থানীয় প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইন মিডিয়ার সাংবাদিকগণ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

0 Shares
Share via