ads
শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ১১:৪৩ অপরাহ্ন

মিসড্ কলের সূত্র ধরে প্রেমের টানে বগুড়ার এসে ধর্ষণের শিকার এক কিশোরী

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০
  • ১ বার পঠিত

সঞ্জু রায়, বগুড়া জেলা প্রতিনিধি: তথ্যপ্রযুক্তির অপব্যবহার, অভিভাবকের অসচেতনতা এবং কিশোর বয়সের ভুল সিদ্ধান্ত যে একটি মেয়ের জীবনে হঠাৎ করেই অন্ধকার এনে দিতে পারে যার একটি দৃষ্টান্ত ঘটে গেছে বগুড়ায়।

মিসড্ কলের সূত্র ধরে প্রেমের টানে বগুড়ার এসে ধর্ষণের শিকার হয়েছে গাজীপুরের নাবালিকা এক কিশোরী। এ ঘটনায় বগুড়া জেলা পুলিশের অপ্রতিরোধ্য ভূমিকায় গ্রেফতার হয়েছে সেই অভিযুক্ত ধর্ষক বগুড়া সদর উপজেলার বাঘোপাড়া সুলতানপাড়া গ্রামের মাফিউল ইসলাম স্বপন (২৫) এবং ইতিমধ্যেই আদালতে আসামী দিয়েছে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) সনাতন চক্রবর্তী উক্ত ঘটনা প্রসঙ্গে  জানান, গাজীপুর জেলার জয়দেবপুর থানার অষ্টম শ্রেণীর সহজ সরল এক কিশোরী মোবাইলে মিসড্কলের সূত্রে প্রেমে পড়েছিল বগুড়ার শুভ ওরফে স্বপনের। কয়েকমাস কথাবার্তা হওয়ার পর সর্বশেষ ১৪ ফেব্র“য়ারী কথা হওয়ার পর যোগাযোগের মাধ্যম তার মায়ের ফোন রেখে গত ১৫ ফেব্র“য়ারি স্কুলের নাম করে গাজীপুর থেকে বগুড়ায় আসে সেই কিশোরী।

বগুড়া চারমাথা এসে তার পাশ্ববর্তী যাত্রীর ফোন থেকে তার প্রেমিক ধর্ষক স্বপন কে কল দিয়ে মাটিডালি মোড়ে দেখা হওয়ার পর মেয়েটাকে মহাস্থানগড় নিয়ে যায় স্বপন। সারাদিন ঘুরে সেই লম্পট স্বপন সন্ধ্যার পর তার বাড়ির পাশের এক জঙ্গলে নিয়ে গিয়ে অস্পষ্ট কথা বলা এবং অসহায় সেই মেয়েটিকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

এতে সেই কিশোরী অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে নিয়ে স্থানীয় টিএমএসএস মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে যায় আসামী স্বপন। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ঘটনাটি পুলিশ কেস আন্দাজ করে তাদের সরকারি হাসপাতালে যেতে বলে এতে আসামী ভীতসন্ত্রস্থ হয়ে তাকে আর হাসপাতালে না নিয়ে গিয়ে মাটিডালি মোড়ে একা ফেলে দিয়ে চলে যায়। পরে ১৫ তারিখ গভীর রাতে সদর থানার ফুলবাড়ি পুলিশ ফাঁড়ির নিয়মিত টহল দলের নজরে আসে মেয়েটি। সাথে সাথেই সদর থানার অফিসার ইনচার্জ এস.এম বদিউজ্জামান ও ফুলবাড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শফিকুল ইসলামের প্রত্যক্ষ তত্ত¡াবধানে কিশোরীকে চিকিৎসার জন্য শজিমেকে ভর্তি করা হয়। শুরু হয় নতুন এক অভিযানের।

কোন প্রকার ক্লু ছাড়া শুধুমাত্র সেই কিশোরীর কাছে থাকা মোবাইল নম্বরের সূত্র ধরে এএসপি সনাতন চক্রবর্তীর নেতৃত্বে সদর ওসি বদিউজ্জামান, ইন্সপেক্টর শফিকুল ইসলাম পলাশ এবং এস.আই শহিদুল ইসলাম শুরু করে ঘটনার মূল রহস্য উদঘাটন এবং ধর্ষককে গ্রেফতারের অভিযান। ভিকটিম মেয়েটি শুধু জানে ছেলেটির নাম শুভ যা ছিল মিথ্যা যে মোবাইল নম্বরটি ছিল তাও ছিল অন্যে আরেক জনের নামে রেজিষ্ট্রেশন করা।

হাল না ছেড়ে সত্যকে উদঘাটনের এক পর্যায়ে নানা কৌশল অবলম্বন করে অবশেষে আসামীকে গ্রেফতার করা হয়। নানা ঝড়-ঝাপটা পার করে অবশেষে ঘটনার সত্যতা জানতে পারে সদর থানা পুলিশ টিম।

২ জন স্ত্রী থাকার পরেও নাম পরিচয় গোপন করে দীর্ঘদিন যাবত গ্রেফতার হওয়া ধর্ষক মাফিউল ইসলাম স্বপন এভাবেই নানা মেয়ের সাথে মুঠোফোনে সম্পর্ক স্থাপন করছিল বলে জানা যায়। বগুড়া সদর থানার অফিসার ইনচার্জ এস.এম বদিউজ্জামান এবং ফুলবাড়ি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর শফিকুল ইসলামের সাথে কথা বললে জানা যায়, উক্ত ঘটনায় সদর থানায় মামলা ঋজু হয়েছে।

 

২০ ফেব্র“য়ারী রাতে আসামী অভিযুক্ত আসামী স্বপনকে গ্রেফতার করে সদর থানা পুলিশ টিম। সে ইতিমধ্যে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দিয়েছে সেই সাথে ভিকটিম হিসেবে সেই মেয়েও ২২ ধারায় আদালতে জবানবন্দি প্রদান করেছে। পুলিশের হাল না ছেড়ে দেওয়ার মনোভাবের কারণেই এই ঘটনার এতটা গভীরে পৌছানো সম্ভব হয়েছে বলে জানান তারা। চিকিৎসা পরবর্তী ভিকটিম সেই কিশোরীকে তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

 

সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫৪
  • ১২:০৭
  • ১৬:৪৩
  • ১৮:৫৩
  • ২০:১৮
  • ৫:১৮
ইঞ্জিনিয়ার মোঃ ওয়ালি উল্লাহ
নির্বাহী সম্পাদক
নিউজ রুম :০২-৯০৩১৬৯৮
মোবাইল: 01727535354, 01758-353660
ই-মেইল: editor@sristybarta.com
© Copyright 2023 - SristyBarta.com
Develop By : BDiTZone.com
themesba-lates1749691102