ads
বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ১১:০৭ পূর্বাহ্ন

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে সংঘর্ষ, নিহত ৩

রিপোর্টারের নাম
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৪ আগস্ট, ২০২০
  • ১ বার পঠিত

যশোর শিশু উন্নয়ন (বালক) কেন্দ্রে দুই পক্ষের সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের অভ্যন্তরে এই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তারা এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মরদেহ তিনটি যশোর জেনারেল হাসপাতালের মর্গে রয়েছে।

নিহতরা হলো- খুলনার দৌলতপুরের রোকা মিয়ার ছেলে পারভেজ হাসান রাব্বি (১৮), বগুড়া জেলার আলহাজ নুরুল ইসলামের ছেলে রাসেল ওরফে সুজন (১৮) একই জেলার নানু প্রামাণিকের ছেলে নাঈম হোসেন (১৭)।

যশোর ডিএসবির পরিদর্শক (ডিআই-১) এম মশিউর রহমান জানিয়েছেন, শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের বাসিন্দাদের মধ্যে (বন্দি হিসেবে পরিচিত) পাভেল ও রবিউলের নেতৃত্বাধীন দুটি গ্রুপ রয়েছে। আধিপত্য বিস্তারের জন্য বৃহস্পতিবার দুপুরে এই দুই গ্রুপ সংঘাতে লিপ্ত হয়। এতে উল্লিখিত তিনজন গুরুতর আহত হয়। এর মধ্যে পাভেল গ্রুপের সদস্য রাব্বি ও সুজন আর রবিউল গ্রুপের সদস্য নাঈম।

শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ দীর্ঘসময় পর সন্ধ্যা সাতটায় রাব্বি, সুজন ও নাঈমকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত ডাক্তার জানান, হাসপাতালে আনার আগেই এই তিন কিশোর মারা গেছে।

রাতে যশোরের জেলা প্রশাসক মো. তমিজুল ইসলাম খান, পুলিশ সুপার মুহাম্মদ আশরাফ হোসেন, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মুহাম্মদ আবুল লাইছসহ বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে যান।

রাত আটটা ৪০ মিনিটে জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান বলেন, আমরা ঘটনাটা বোঝার চেষ্টা করছি।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, কেন কী কারণে হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটলো তা তদন্তে কমিটি করা হবে।

হাসপাতালের চিকিৎসক অমিয় দাস জানান, হাসপাতালে আনার আগেই তারা মারা যায়। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট হাতে পেলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

বালকদের জন্য দেশে দুটি শিশু উন্নয়ন কেন্দ্র আছে। যার একটি গাজীপুরের টঙ্গিতে, অন্যটি যশোর শহরতলির পুলেরহাটে। কিশোর অপরাধীদের জেলখানায় না পাঠিয়ে সংশোধনের জন্য এই উন্নয়ন কেন্দ্রে রাখা হয়। সমাজসেবা অধিদপ্তর এই কেন্দ্রের নিয়ন্ত্রক।

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে প্রায়ই অঘটন ঘটে। লাশ উদ্ধার, মারপিটের ঘটনা এর আগেও ঘটেছে। সংশ্লিষ্টদের দায়িত্বে অবহেলা, দুর্নীতির কারণে প্রতিষ্ঠানটিতে অনিয়ম জেঁকে বসেছে। এর আগে একটি ঘটনার প্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসন গঠিত তদন্ত কমিটি এই তথ্য দিয়ে প্রতিষ্ঠানটি সুষ্ঠুভাবে চালানোর জন্য একগুচ্ছ সুপারিশ করেছিল। কিন্তু অবস্থার যে উন্নতি হয়নি; বরং অবনতি হয়েছে, আজ তিন লাশ উদ্ধারের মাধ্যমে তা প্রমাণিত হলো।

তিন কিশোরের মরদেহ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে বলে খবর পেয়ে সেখানে সংবাদকর্মীরা ভিড় জমান। কিন্তু হাসপাতালে কিশোর উন্নয়ন কেন্দ্রের কাউকে পাওয়া যায়নি।

শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রের তত্ত্বাবধায়ক আব্দুল্লাহ আল মাসুদের নাম্বারে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি। পরে বক্তব্য নেওয়ার জন্য সশরীরে উন্নয়ন কেন্দ্রে যাওয়া হলেও কর্তব্যরত আনসার সদস্যরা জানান, ভেতরে পুলিশ ছাড়া অন্য কারো প্রবেশ নিষেধ।

পুলিশ জানায়, শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে অবস্থানরতদের একটি করে রেজিস্ট্রেশন নাম্বার থাকে। আজ নিহত রাব্বির রেজিস্ট্রেশন নাম্বার ১১৮৫৩। আর রাসেল ও নাঈমের রেজিস্ট্রেশন নাম্বার যথাক্রমে ৭৫২৪ ও ১১৯০৭। নাঈম হোসেন ধর্ষণ এবং রাব্বি হত্যা মামলার আসামি ছিল।

রাতে যোগাযোগ করা হলে কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান বলেন, আমি ঘটনাস্থলে আছি। ঘটনা কেন কীভাবে ঘটলো তা অনুসন্ধান করা হচ্ছে।

সামাজিক মিডিয়া এই পোস্ট শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর

Prayer Time Table

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫২
  • ১১:৫৮
  • ১৬:৩৩
  • ১৮:৪০
  • ২০:০৩
  • ৫:১৩
ইঞ্জিনিয়ার মোঃ ওয়ালি উল্লাহ
নির্বাহী সম্পাদক
নিউজ রুম :০২-৯০৩১৬৯৮
মোবাইল: 01727535354, 01758-353660
ই-মেইল: editor@sristybarta.com
© Copyright 2023 - SristyBarta.com
Develop By : BDiTZone.com
themesba-lates1749691102