আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন নুসরাত!

কয়েকদিন ধরেই টলিপাড়ায় ভেসে বেড়াচ্ছে ওপার বাংলার জনপ্রিয় অভিনেত্রী ও সাংসদ নুসরাত জাহানের নানা খবর। যদিও মা হওয়ার খবর সামনে আসার পর তিনি প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্যই করেননি।

এবার সামনে এল নতুন খবর। শোনা গেল, বিয়ের কয়েক মাস পর নাকি আত্মহত্যা করতে চেয়ে নুসরাত হাসপাতালেও ভর্তি হয়েছিলেন। জানা যায়, একসঙ্গে অনেক ওষুধ খেয়ে নেওয়ায় অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। সম্ভবত ঘুমের ওষুধ খেয়েছিলেন তিনি।

প্রাথমিকভাবে নুসরাতকে হাসপাতালের আইসিইউ-তে রাখা হয়। তার ঘুমের ওষুধের ওভারডোজ নিয়ে ফুলবাগান থানায় প্রতিবেদনও জমা দেয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। তখন গুঞ্জন ওঠে, তিনি ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যা করতে চেয়েছিলেন। তবে ঘুমের ওষুধ খেয়ে অসুস্থতার কথা ‘সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন’ বলে উড়িয়ে দেয় নুসরাতের পরিবার।

নিখিলের সঙ্গে নুসরাতের বিয়ে
২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রার্থী হন নুসরাত। নির্বাচনে জিতে বসিরহাটের সাংসদ হন। বিজেপি-র সায়ন্তন বসুকে সাড়ে ৩ লাখ ভোটে হারিয়েছিলেন নুসরাত। একই বছর জুনের ১৯ তারিখ তার বিয়ে হয় ব্যবসায়ী নিখিল জৈনের সঙ্গে।

যদিও বিয়ের আগে তাদের প্রেম ছিল, কিন্তু বিষয়টি সামনে আসেনি। তবে গুঞ্জন শোনা যাচ্ছিল। তুরস্কে গিয়ে বিয়ে সারেন এ অভিনেত্রী। জানা যায়, তারা আগে থেকেই ভাল বন্ধু ছিলেন।

যশ দাশগুপ্তের সঙ্গে নুসরাত
সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার সাংসদ ও অভিনেত্রী নুসরাত জাহানের মা হওয়ার খবরটি সামনে আসার পর থেকে একের পর এক উঠে আসছে অবাক করা তথ্য। নিখিল দাবি করেছেন, গত ৭ মাস ধরে তিনি এবং নুসরাত আলাদা থাকেন। তাই সন্তান তার নয়।

টলিপাড়ার এই অভিনেত্রীর জীবনে অভিনেতা যশ দাশগুপ্তের ভূমিকা নিয়ে রয়েছে নানা গুঞ্জন। নেটিজেনরা তো ধরেই নিয়েছেন, নুসরাতের অনাগত এ সন্তানের জনক যশই।

আরো পড়ুন