বিধিনিষেধ শিথিলের শেষ দিন আজ

শুক্রবার সকাল থেকে ফের দুই সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ শুরু। ভোর ৬টা থেকে ৫ই আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত আবারো বিধিনিষেধ আরোপ থাকবে।
এর আগে ১৩ই জুলাই মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের এক প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ঈদ উপলক্ষে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে ১৪ই জুলাই মধ্যরাত থেকে ২৩শে জুলাই ভোর ৬টা পর্যন্ত সব ধরনের বিধিনিষেধ শিথিল রাখা হবে। শুক্রবার (২২ জুলাই) ভোর থেকে শুরু হতে যাওয়া কঠোর বিধিনিষেধে ২৩টি শর্ত আরোপ করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, দেশে ক্রমবর্ধমান করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে আরও কঠোর হবে প্রশাসন।

এদিকে, দেশে করোনার সংক্রমণ বাড়তে থাকায় তা প্রতিরোধে ১লা জুলাই থেকে সাত দিনের জন্য কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে সরকার। কঠোর বিধি-নিষেধ আরোপ করে প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। পরে ৫ জুলাই আরেক দফায় চলমান কঠোর বিধি-নিষেধের মেয়াদ ১৪ই জুলাই পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। এসময় জরুরি পন্য পরিবহণ ছাড়া সব ধরনের যন্ত্রচালিত যানবাহন বন্ধ থাকে। এরপর ঈদ উপলক্ষ্যে গত ১৫ জুলাই থেকে বিধিনিষেধ শিথিল করা হলে আবারও স্বাভাবিক হতে শুরু করে জনজীবন।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নিশ্চিত হওয়া গেলেও বাংলাদেশে ভাইরাসটি শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওইদিন তিনজন করোনা রোগী শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছিলো স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। করোনায় মৃত্যুর হার শুরুতে বৃদ্ধি পাওয়ার পর অনেকটাই কমে এসেছিলো সে হার। তবে, দেশে করোনায় ২য় ঢেউয়ে আবারো বাড়তে শুরু করেছে সংক্রমণ হার ও মৃতের সংখ্যা। সংক্রমণ ঠেকাতে আবারো দেশে কঠোর বিধিনিষেধ জারি করে সরকার।

আরো পড়ুন