শেরপুরে আদিবাসী কৃষকের ফসল কেটে ফেলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

শ্রীবরদীর বালিজুড়ি খ্রিস্টান পাড়া এলাকায় আদিবাসীদের ফসল কেটে ফেলার ক্ষতি পূরণের জন্য দাবি

শেরপুর প্রতিনিধি; শেরপুরের শ্রীবরদী বালিজুড়ি খ্রিস্টান পাড়ায় বন বিভাগ কর্তৃক আদিবাসী কৃষকের ফসল কেটে ফেলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে।

আদিবাসীদের ফসল কেটে ফেলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

সোমবার(২৩ আগস্ট) দুপুরে শেরপুর শহরের বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে এ কর্মসূচি করে বাংলাদেশ গারো ছাত্র সংগঠনের (বাগাছাস) শ্রীবরদী উপজেলা শাখা।

আদিবাসীদের ফসল কেটে ফেলার প্রতিবাদে মানববন্ধন

মানববন্ধনে শ্রীবরদীর বালিজুড়ি খ্রিস্টান পাড়া এলাকায় আদিবাসীদের ফসল কেটে ফেলার ক্ষতি পূরণের জন্য দাবি জানান বক্তারা। একই সঙ্গে এ কাজে জড়িত বনবিভাগের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের অপসারণেরও দাবি জানান তারা।

বক্তারা বলেন, দেশে রোহিঙ্গাদের আশ্রয় হয়, ভূমিহীনদের জন্য আশ্রয়ণ প্রকল্প হয় কিন্তু আমরা আদিবাসীরা যুগযুগ ধরে পাহাড়ে জঙ্গলে বসত করে আসছি, আমাদের স্থায়ী আবাসন হয়না। আমাদের ঘরবাড়ি, ফসলের কোন নিরাপত্তা নেই। দুষ্কৃতিকারীরা আমাদের ঘরবাড়ি ভেঙে দেয়, ফসল কেটে নেয়। আমরা নিরাপদহীন।

সমাবেশে সংহতি জানিয়ে আদিবাসী নেত্রী ক্লোডিয়া নকরেখ কেয়া বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত পাঁচটি গারো পরিবারগুলোকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ দেওয়া, বন বিভাগের রেঞ্জ কর্মকর্তা ও বিট কর্মকর্তাকে অপসারণ করার দাবি জানাচ্ছি।

বাগছাস নেতা লিংকন বলেন, আদিবাসীদের সবচেয়ে বড় সমস্যাটি হলো ভূমি সমস্যা। এই সমস্যা সমাধানের জন্য সরকারের উচিত সমতল আদিবাসীদের জন্য পৃথক ভূমি কমিশন গঠন করা। এবং ক্ষতিগ্রস্থ অই পরিবারগুলোকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

এসময় বাংলাদেশ গারো ছাত্র সংগঠনের শ্রীবরদী ও নালিতাবাড়ী শাখার নেতৃবৃন্দসহ আদিবাসী নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আরো পড়ুন