করিমগঞ্জে কলেজপড়ুয়া স্ত্রীকে ছুরি দিয়ে গলা কেটে হত্যা

কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জে যৌতুক দাবির দুই লাখ টাকা না পেয়ে প্রজ্ঞা মস্তোফা নামে কলেজপড়ুয়া গৃহবধূকে ছুরি দিয়ে গলা কেটে নৃশংসভাবে হত্যা করেছে স্বামী। পুলিশ ঘাতক স্বামী দেলোয়ার হোসেন মাহতাবকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিসহ আটক করেছে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার কাদিরজঙ্গল ইউনিয়নের উত্তর চানপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। প্রজ্ঞা মস্তোফা কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের অনার্স ফাইনাল ইয়ারের শিক্ষার্থী। তার ৩ মাস বয়সের একটি মেয়ে রয়েছে।

জানা গেছে, প্রায় দুই বছর আগে করিমগঞ্জ উপজেলার উত্তর চানপুর গ্রামের মৃত ইমাম উদ্দিনের ছেলে বিদেশ ফেরত দেলোয়ার হোসেন মাহতাব একই জেলার ইটনা উপজেলার লাইমপাশা গ্রামের আহসানুল্লাহ মাস্টারের মেয়ে প্রজ্ঞা মস্তোফার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। বিয়ের পর থেকেই যৌতুকলোভী স্বামী বাবার বাড়ি থেকে দুই লাখ টাকা এনে দিতে চাপ দিচ্ছিল স্ত্রী প্রজ্ঞাকে।

কিন্তু টাকা দিতে না পারায় তাদের দাম্পত্য কলহ লেগেই থাকত। বৃহস্পতিবার সকালে পুনরায় বাবার বাড়ি থেকে যৌতুক দাবির টাকা এনে দিতে চাপ দেয় দেলোয়ার। এ সময় এত টাকা কোনো অবস্থাতেই এনে দিতে পারবে না বললে ক্ষিপ্ত হয়ে গরু জবাইয়ের ছুরি দিয়ে স্ত্রী প্রজ্ঞা মস্তোফাকে ঘরের ভেতর নৃশংসভাবে হত্যা করে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা চালায় দেলোয়ার।
প্রজ্ঞা মস্তোফার লাশের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করেন করিমগঞ্জ থানার উপপুলিশ পরিদর্শক আবদুল্লাহ আল মাসুদ জানান, তার মাথা পেছনে এবং কান বরাবর গলার নিচসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে ধারালো অস্ত্রের জখম ছিল। তার মরদেহের আশপাশে ছোপ ছোপ রক্তের সে াত ছিল। প্রজ্ঞা মস্তোফার বাবা আহসানুল্লাহ মাস্টার জানান, বিদেশ গিয়ে ফতুর হয়ে বাড়ি ফিরে আসা প্রজ্ঞার স্বামী দেলোয়ার হোসেন মাহতাব বিয়ের পর থেকেই মোটা অঙ্কের যৌতুকের টাকার জন্য চাপ দিচ্ছিল।

আরো পড়ুন