পাকা চুল কালো করার ফর্মূলা

চুল পেকে যাওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে অনেকেই চুলে রঙ করে থাকেন। তবে চুলে রঙ করলে অথবা চুল ডাই করলে হিতে বিপরীত হবে পারে।

বদলে যাচ্ছে জীবনযাত্রা। তার জেরে কাজের চাপের সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে মানসিক চাপও। আবার অন্য দিকে লাগামছাড়া পরিবেশের দূষণ। আর এই সব কিছুর প্রভাব পড়ছে আমাদের স্বাস্থ্যে। শারীরিক অসুস্থতার পাশাপাশি চুল ও স্কিনের সমস্যাও দেখা দিচ্ছে এই সব কারণে। আজকাল বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় যে, কম বয়সেই চুল ঝরে যাচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, অকালে চুল পেকে যাওয়ার সমস্যাও দেখা দিচ্ছে। আসলে নিয়ম মেনে সঠিক ভাবে চুলের যত্ন না-নিলে কম বয়সেই চুল পেকে যেতে পারে। তা ছাড়া অনেক সময় শারীরিক অসুস্থতার জেরেও চুল পেকে যাওয়ার মতো সমস্যা দেখা যায়।

চুল পেকে যাওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে অনেকেই চুলে রঙ করে থাকেন। তবে চুলে রঙ করলে অথবা চুল ডাই করলে হিতে বিপরীত হবে পারে। অর্থাৎ হেয়ার ডাই চুলের জন্য বিপদ ডেকে আনতে পারে। তাই এই উপায়ের বদলে প্রাকৃতিক উপায় মেনে চললে চুল কালো হবে। এর পাশাপাশি, চুল ক্ষতির হাত থেকেও রেহাই পাবে। আর পাকা চুল কালো করতে সবথেকে ভালো হল সরষের তেল। সরষের তেলে মেহেন্দি পাউডার মিশিয়ে নিয়ে মাসাজ করলে চুল শুধু মজবুতই হবে না, সেই সঙ্গে চুলও গোড়া থেকে কালো হবে।

আয়ুর্বেদ মতে চুলের যত্নের জন্য সরষের তেল দারুণ কার্যকর। চুলে সরষের তেল মাসাজ করলে বহু সমস্যাই দূর করা সম্ভব। এতে চুলের টাক পড়া রোধ করা যায় এবং সেই সঙ্গে চুলকে কালো করাও সম্ভব। প্রাকৃতিক উপায়ে চুল কালো করার জন্য এই বিশেষ তেলকে বেশি কার্যকর বানাতে এক কাপ সরষের তেল এবং তিন টেবিলচামচ হেনা পাউডার বা হেনা পাতা নিতে হবে। এ বার জেনে নেওয়া যাক, এই বিশেষ তেল তৈরির প্রক্রিয়া।

গ্যাসের চুলাতে একটি লোহার কড়াই ভাল করে গরম করে নিয়ে তাতে এক কাপ সরষের তেল দিতে হবে।

তেল গরম হলে গ্যাসের আঁচ কমিয়ে দিতে হবে এবং তাতে হেনা পাউডার মেশাতে হবে।

এবার তেল ফোটা না-পর্যন্ত সেই মিশ্রণটি নাড়াচাড়া করে যেতে হবে।

তেলে মেহেন্দি পুরোপুরি ভাবে মিশে গিয়ে তেল কালো হলে গ্যাস বন্ধ করে দিতে হবে।

এর পর তেলের কড়াইকে ১ ঘণ্টা ভাল করে ঢেকে রেখে দিতে হবে।

তেলের মিশ্রণ ঠান্ডা হলে তা ছেঁকে নিয়ে একটি কাচের বোতলে ভরে রাখতে হবে।

আরো পড়ুন
error: সৃষ্টি বার্তা থেকে কপি করা যাবে না।