কলেজ ছাত্রীকে ধর্ষণ মামলায় বরখাস্ত পিবিআই পরিদর্শক কারাগারে

বরখাস্ত পিবিআই পরিদর্শক মঞ্জুরুল আহসান মাসুদের বিরুদ্ধে খুলনা মহানগরীর ছোট মির্জাপুর এলাকার এক‌টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে নিয়ে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে

খুলনায় কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) বরখাস্ত হওয়া পরিদর্শক মঞ্জুরুল আহসান মাসুদকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

গত বুধবার (৮ জুন) খুলনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব‌্যুনা‌ল ১ এর বিচারক মোসা. দিলরুবা সুলতানা বরখাঁস্ত পিবিআই পরিদর্শককে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অলোকা নন্দা দাস গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

অলোকা নন্দা দাস জানান, গত ২৬ মে মামলার আসা‌মি মাসুদ উচ্চ আদালত থেকে ১৪ দিনের অন্তবর্তী জা‌মিন পান। বুধবার উচ্চ আদালতের জা‌মি‌ন মেয়াদের শেষ দিন ছিল। নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করে জা‌মিনের আবেদন করলে তা না মঞ্জুর করে মাসুদকে কারাগারে পাঠানো হয়।

প্রসঙ্গত, গত ১৫ মে পিবিআই পরিদর্শক মঞ্জুরুল আহসান মাসুদের বিরুদ্ধে খুলনা মহানগরীর ছোট মির্জাপুর এলাকার এক‌টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এক কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে। ওইদিন দুপুরে ভুক্তভোগীকে নিয়ে সেখানে অভিযান চালায় পুলিশ।

খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন তখন জানান, ওই কলেজছাত্রী পিবিআই পরিদর্শক মাসুদের কাছে অনলাইনে ছবি ছড়িয়ে পড়া সংক্রান্ত বিষয়ে সহায়তা চাইতে আসেন। এরপর তাকে সহায়তার কথা বলে কাগজী হাউজের ওই কার্যালয়ে নিয়ে যায় মাসুদ। সেখানে তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের জন্য ওই অফিসের তালা ভেঙে সেখানে অভিযান পরিচালনা করা হয়। অভিযানে নেতৃত্ব দেন কেএমপির উপ-পুলিশ কমিশনার সোনালী সেন। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভুক্তভোগীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়।

আরো পড়ুন
error: সৃষ্টি বার্তা থেকে কপি করা যাবে না।