দেশে জ্বালানি তেলের দাম এখনও অনেক দেশের চেয়ে কম: তথ্যমন্ত্রী

তেল পাচার রোধও দাম বৃদ্ধির কারণ বলে জানান হাছান মাহমুদ।

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হলেও তা এখনও অনেক দেশের তুলনায় কম।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে ক্ষোভের মধ্যে শনিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে একথা বলেন তিনি।

ইউক্রেইন যুদ্ধের কারণে বিশ্ববাজারে অস্থিরতার মধ্যে সরকার শুক্রবারই ডিজেল-কেরোসিনের দাম ৪২ শতাংশ, পেট্রোল ও অকটেনের দাম ৫১ শতাংশ বাড়ায়।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, “মূল্যবৃদ্ধির পর এদেশে জ্বালানি তেলের দাম যে পর্যায়ে গেছে, আশেপাশের দেশগুলোতে এই পরিমাণ মূল্যবৃদ্ধি অনেক আগেই করেছে।

“তারপরও আরব আমিরাত, চীন, নেপাল, ইন্দোনেশিয়া, সিঙ্গাপুর, হংকংসহ অনেক দেশের চেয়ে তেলের দাম এদেশে কম এবং ভারতের সমান। অর্থাৎ মূল্যবৃদ্ধির পরও অনেক দেশের তুলনায় কম।”

সে কারণে তেল পাচার রোধও দাম বৃদ্ধির কারণ বলে জানান তথ্যমন্ত্রী।

“ভারতে ডিজেলের মূল্য বাংলাদেশি টাকায় ১১৪ টাকা এবং অকটেন ১৩৫ টাকা অনেক আগে থেকেই। আমাদের দেশে দাম কম হওয়ার কারণে সীমান্ত দিয়ে প্রচুর জ্বালানি তেল পাচার হয়ে যাচ্ছিল।”

তেলের দাম বাড়ায় সুযোগে পরিবহন খাতে ভাড়া যেন অতিরিক্ত বেশি না হয়, তা সরকার দেখবে বলে আশ্বাস দেন হাছান মাহমুদ।

“যদি একটি বাসে ৫০ জন যাত্রী ধারণ ক্ষমতা থাকে এবং এর মধ্যে যদি ৭০ ভাগ আসন পূর্ণ থাকে, তাহলে প্রতি কিলোমিটারে ভাড়া বাড়বে মাত্র ২৯ পয়সা। বর্তমানে প্রতি কিলোমিটারে এক টাকা ৮০ পয়সা করে ভাড়া নেওয়া হয়। সেটি বেড়ে এখন দুই টাকা নয় পয়সা হবে। সরকার পরিবহন সেক্টরসহ সবার সঙ্গে বসবে এবং মূল্যবৃদ্ধির অবৈধ সুযোগ যাতে কেউ নিতে না পারে, সেদিকে লক্ষ্য রাখবে।”

শেখ কামালের ৭৩তম জন্মদিন উপলক্ষে ‘স্পর্ধিত তারুণ্যের প্রতিচ্ছবি শেখ কামাল’ শীর্ষক এই আলোচনার সভায় আয়োজন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ।

অনু্ষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ, যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস্ পরশ, ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস এবং সঞ্চালনায় ছিলেন সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন।

#বিডিনিউজ

আরো পড়ুন