হঠাৎ ইডেন শাখা আহ্বায়কের বয়স নিয়ে ‘আলোচনা’, যা বলছে ছাত্রদল

কয়েকদিন ধরেই আলোচনায় ইডেন মহিলা কলেজ। এ কলেজ শাখা ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। ছাত্রলীগ নেত্রীদের বিরুদ্ধে সিট বাণিজ্য, চাঁদাবাজি, ছাত্রীদের নির্যাতনের অভিযোগ ছাপিয়ে আলোচনায় এসেছে তাদের বিভিন্ন মন্তব্য। খোদ ছাত্রলীগের একপক্ষের নেত্রীরা অন্যপক্ষের বিরুদ্ধে সাধারণ ছাত্রীদের জোর করে ‘অনৈতিক’ কাজে জড়ানোর অভিযোগ তুলেছেন। তাদের এমন বক্তব্য গণমাধ্যমে প্রচারের পর তা ভাইরাল হয়েছে।

তবে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে গত কয়েকদিন এত এত ঘটনা ঘটলেও সব ছাপিয়ে হঠাৎ দৃশ্যপটে ইডেন কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক রেহেনা আক্তার শিরিন। তিনি কোনো বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্য আলোচনায় আসেননি। মূলত এ নেত্রীর বয়স নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।

জানা গেছে, ছাত্রলীগের কোন্দলে উত্তাল ইডেন কলেজের চলমান ইস্যু নিয়ে একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেন কলেজ শাখা ছাত্রদলের আহ্বায়ক রেহেনা আক্তার শিরিন। তার সেই সাক্ষাৎকারের একটি স্ক্রিনশট ভাইরাল হয়।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারী ও শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন, এত বেশি বয়সের একজন নারী কীভাবে ছাত্ররাজনীতিতে জড়িত থাকতে পারেন?

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ইডেন কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক রেহেনা আক্তার শিরিন ২০০৫ সালে এসএসসি পাস করেন। ১৭ বছর বয়সে তিনি এসএসসি পাস করলেও বর্তমানে তার বয়স ৩৪। ২০০৭ সালে তিনি ইডেন মহিলা কলেজের মার্কেটিং বিভাগে ভর্তি হন। কিছুদিন আগে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় কমিটি যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদ পেয়েছেন ইডেন কলেজ ছাত্রদলের এ আহ্বায়ক।

তবে কলেজ শাখা ছাত্রদলের এক নেত্রী নাম প্রকাশ না করার শর্তে দাবি করেছেন, রেহেনা আক্তার শিরিন বিবাহিত। তিনি দুই সন্তানের জননীও।

ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রদলের কমিটিতে থাকা আরেক নেত্রী জাগো নিউজকে বলেন, ‘আসলে এ বিষয়টা নিয়ে আমরাও বিড়াম্বনায় পড়েছি। দুদিন আগে ওনার একটি সাক্ষাৎকারের ছবি ভাইরাল হয়েছে। অনেকেই তার বয়স নিয়ে ট্রল করছেন। তাছাড়া ওনার দুটি সন্তান রয়েছে। নিজের সংগঠনকে নিয়ে আর কী বলবো? আমাকেও অনেকে এসব নিয়ে মেসেজ দিচ্ছেন। বিষয়টি নিয়ে আমরা সত্যিই বিব্রত।’

এসব বিষয়ে জানতে ইডেন কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রেহেনা আক্তার শিরিনের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করা হয়।

তিনি বলেন, ‘দল ক্ষমতায় থাকলে কতকিছুই তো বলা যায়। আমরা জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল করি, রাজপথে আন্দোলন করি। সেটা বড় কথা না, বড় কথা হলো আমাদের ছাত্রত্ব আছে কি না?’

কীভাবে এতদিন শিরিন ছাত্রত্ব ধরে রেখেছেন- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘সরাসরি না বললে আপনি বুঝবেন না..।’

ছাত্রদলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আপনার বয়স ঠিক আছে কি না, এমন প্রশ্নে রেহেনা আক্তার শিরিন বলেন, ‘মানুষের বয়স ও বেতন জানতে চাইতে হয় না।’

তবে সন্তান থাকার বিষয়টি অস্বীকার করেন ছাত্রদলের নেত্রী রেহেনা আক্তার শিরিন।

ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি কাজী রওনাকুল ইসলাম শ্রাবণ বলেন, ‘কেউ যদি সমালোচনা করে, তবে তার ব্যক্তিগত ব্যাপার। অভিযোগ ঢালাওভাবে করতেই পারে। আমরা তার সার্টিফিকেট, সিভি যাচাই-বাছাই করেই পদ দিয়েছি।’

তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগ যদি নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে ছাত্রদলকে ব্লেইম করে বেড়াই, তা তো আমরা কিছু করতে পারি না। আমরা তার সার্টিফিকেট দেখেছি, রেজিস্ট্রেশনের ফটোকপিও আমাদের কাছে আছে। ক্রাইটেরিয়ার মধ্যে থাকলে তাকেই আমরা রাখি।’

ছাত্রদল সভাপতি আরও বলেন, ‘ঢাকা শহরে অনেকগুলো কমিটি নতুন হয়েছে। শিগগির সেগুলো পূর্ণাঙ্গ করা হবে। ইডেন কলেজেও নতুন কমিটি দেওয়ার চিন্তাভাবনা চলছে।’

২০২০ সালের ২৪ জুলাই ইডেন কলেজ ছাত্রদলের আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল। রেহানা আক্তার শিরিনকে আহ্বায়ক ও সনজিদা ইয়াসমিন তুলিকে সদস্যসচিব করা হয়।

কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক পদ পান সৈয়দা সুমাইয়া পারভীন, জান্নাতুল ফেরদৌস। এছাড়া সদস্য পদে আনা হয় তোহফা মোস্তফা, অনিকা চৌধুরী, শিখা আক্তার, স্বর্ণালীকে।

#জাগো নিউজ

আরো পড়ুন