৬ মাসের শিশু মাহাদী হাসানকে অপহরণ করে বিক্রি

গাজীপুর মহানগরের পূবাইলে ৬ মাসের শিশুসন্তান মাহাদী হাসানকে আদর করতে করতে অপহরণের পর বিক্রি করে দেন জিনা বেগম (২৮) ওরফে লতা বেগম নামে এক নারী।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অপহরণের পর বৃহস্পতিবার ওই শিশুকে উদ্ধার করে মায়ের কোলে ফিরিয়ে দেয় পুলিশ। এ ঘটনায় ২ নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

জানা গেছে, মঙ্গলবার সন্ধ্যায় পূর্ব পরিচিতির সুবাদে শিশুটিকে আদর করতে করতে অপহরণ করে নিয়ে যায় জিনা বেগম। এ বিষয়ে শিশুটির বাবা ইদ্রিস মণ্ডল বাদী হয়ে জিনা বেগমকে আসামি করে পূবাইল থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন মঙ্গলবার রাতে।

বাদী মো. ইদ্রিস মণ্ডল (৫০) জামালপুর জেলার মাদারগঞ্জ থানার পোড়াবাড়ি গ্রামের রশিদ মণ্ডলের ছেলে।

অপহরণকারী ও শিশুটির বিক্রেতা আসামি জিনা বেগম নেত্রকোনা জেলার পূর্বধলা থানার নোয়াগাঁও গ্রামের আবদুল কাদেরের মেয়ে। বর্তমানে পূবাইল থানার ৪০নং ওয়ার্ডের কুদাব এলাকার ইসমাইল হোসেনের ভাড়াটিয়া। অপর আসামি শিশুটির ক্রেতা আঁখি বেগম টঙ্গী পূর্ব থানার আমতলী কেরানীরটেক বেলতলী মাজার এলাকার সুমনের স্ত্রী।

বৃহস্পতিবার সকালে উদ্ধার করতে গিয়ে দেখা যায়, মাত্র ৬ মাসের শিশু মাহাদী হাসানকে ১৩ হাজার টাকার বিনিময়ে টঙ্গী পূর্ব থানার আমতলী কেরানীটেকের কথিত মাদক কারবারি আঁখি বেগমের (৪০) কাছে বিক্রি করে দিয়েছে। উদ্ধার করা শিশুসন্তান মাহাদীকে বুকে ফিরে পেয়ে মা রোকেয়া বেগম আবেগে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

পূবাইল মেট্রোপলিটন থানার ওসি মোহাম্মদ জাহিদুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার দুপুরে নারীও শিশু নির্যাতন দমন মামলায় কোর্টের মাধ্যমে দুজনকেই গাজীপুর জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

আরো পড়ুন