ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি খেলা নিয়ে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি অবনতির আশঙ্কা

নিজস্ব প্রতিনিধি: শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে একইস্থানে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের পাল্টাপাল্টি খেলা আয়োজন নিয়ে আইনশৃঙ্খলা অবনতির আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা। আগামী মঙ্গলবার (৩১ ডিসেম্বর) দুুপুরে ‘বঙ্গবন্ধু সিক্স এ সাইড ক্রিকেট টূর্নামেন্ট/১৮-১৯’ নামের একই টূর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা আয়োজন করেছে ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের দুই গ্রুপ। একই খেলা বিবদমান দুইটি গ্রুপ একই ভেন্যুতে আয়োজন করায় এ আশঙ্কা করছে স্থানীয়রা।

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ ঝিনাইগাতী উপজেলা শাখার আয়োজনে প্রচার করা ওই খেলার আমন্ত্রণ পত্রের তথ্য মতে জানা যায়, ঝিনাইগাতী পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় ভেন্যুতে ওই ফাইনাল খেলায় স্থানীয় নিউ স্টার ক্রিকেট ক্লাব ২ এবং ব্রাদার্স ইউনিয়ন ইন হসপিটাল নামের দুটি দল অংশগ্রহণ করার কথা রয়েছে। একই খেলার একটি আমন্ত্রণ পত্রে নিজেকে ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক উল্লেখ করে শাহরিয়ার খান শাওন ঝিনাইগাতী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএমএ ওয়ারেজ নাঈমকে উদ্বোধক, শেরপুরের পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীমকে প্রধান অতিথি, ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবেল মাহমুদ, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শোয়েব হাসান শাকিল ও সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজাকে বিশেষ অতিথি হিসেবে প্রচার করছেন।

এদিকে অন্য একটি আমন্ত্রণ পত্রে একই খেলার আহবায়ক দাবী করে শেরপুর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক রাকিবুল হাসান শিমুল জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শোয়েব হাসান শাকিলকে উদ্বোধক, ঝিনাইগাতী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান এসএমএ ওয়ারেজ নাঈমকে প্রধান অতিথি ও জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রেজাকে প্রধান বক্তা হিসেবে প্রচার করছেন।

ঝিনাইগাতী বাজারের হযরত আলী, রবিউল হাসান, মকবুল হোসেনসহ অনেকে জানান, একইস্থানে একই সময়ে একই খেলার ফাইনাল ছাত্রলীগের দুইটি গ্রুপ আয়োজন করতেছে। এতে বিশৃঙ্খলা হওয়ার আশংকা আছে। এ ব্যাপারটা সুরাহা হওয়া দরকার। তা না হলে কোন ঝামেলা হতে পারে। তাই আমরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

আয়োজন সম্পর্কে শাহরিয়ার খান শাওন বলেন, ‘ঘোলা পানিতে কেউ মাছ শিকারের চেষ্টা দুঃখজনক। খেলায় কোন বিশৃঙ্খলা যেনো না হয় এ ব্যাপারে ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগ, শেরপুর জেলা ছাত্রলীগ ও ঝিনাইগাতী উপজেলা আওয়ামীলীগ তৎপর রয়েছে। শান্ত ঝিনাইগাতীর শান্ত পরিবেশ শান্তই থাকবে; কেউ বিশৃঙ্খলা করতে পারবে না। মাঠ ব্যবহারের জন্য প্রশাসনের সাথে আবারো কথা হবে।’

 

খেলার আয়োজন সম্পর্কে রাকিবুল হাসান শিমুল বলেন, ‘যখন ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের কোন কমিটি ছিলোনা, আমি আহ্বায়ক হয়ে তখন এই খেলার কার্যক্রম শুরু করি। এই টূর্ণামেন্টের পরিচালনার সকল কাগজপত্র আমার কাছে আছে। কিন্তু ঝিনাইগাতী উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক দাবী করে এই খেলাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করা হচ্ছে। দীর্ঘদিন এই খেলার কার্যক্রম বন্ধ ছিলো; আমি উদ্যোগ নেওয়ার পর আমার খেলাকে বন্ধ করার জন্য এই অপচেষ্টা চালানো হচ্ছে।’

খেলার ভেন্যু ঝিনাইগাতী মডেল পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হামিদ বলেন, ‘খেলা পরিচালনার জন্য একটি গ্রুপ আমার কাছে অনুমতি চেয়েছিলো, আমি ইউএনও মহোদয়ের কাছে লিখিত দিতে বলেছি। এরপর তারা হয়ত লিখিত দিয়েছে। অনুমতি পেয়েছে কি না, আমি সঠিক বলতে পারছি না।’

 

 

খেলার ব্যাপারে ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ঝিনাইগাতী উপজেলা ক্রিড়া সংস্থার সভাপতি রুবেল মাহমুদ বলেন, ‘দুই গ্রুপকেই একই মাঠে একই ফাইনাল খেলা পরিচালনা না করতে মুঠোফোনে বলে দেয়া হয়েছে। আমি আবারো তাদেরকে এ ব্যাপারে নিষেধ করে দিবো। রাজনৈতিক কারণে কোনভাবেই নিরাপত্তা ঝুঁকি নেয়া হবে না।’

 

আরো পড়ুন