করোনা: সংক্রমণের ঝুঁকি নিয়েই ঈদের আমেজে শেরপুর আসছে তারা

অনলাইন ডেস্ক অনলাইন ডেস্ক

সৃষ্টিবার্তা ডটকম

প্রকাশিত: মার্চ ২৫, ২০২০

নিজস্ব প্রতিনিধি; মহামারী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের কড়া নির্দেশনা দেয়ার পরও কর্ণপাত করছে না ঢাকা থেকে আসা শেরপুরের ঘরমুখো মানুষেরা।

ঈদের ছুটির মতো গাদাগাদি করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাস-লেগুনা করে বাড়িতে আসছে মানুষ।

বুধবার শেরপুরের বিভিন্ন সড়কে এমন চিত্র দেখা যায়। বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস আতঙ্ক এখন সবার মাঝে। এই আতঙ্কেই ঢাকা শহর ফাঁকা করে মানুষ ছুটে আসছে নিজ নিজ গ্রামের বাড়ি।

জনসমাগম এড়িয়ে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে প্রতিটি মানুষকে অন্তত তিন ফুট দূরত্বে থাকতে বলা হলেও তিন ইঞ্চিও মানছেন না এসব লেগুনা গাড়ির যাত্রীরা। ঠাসাঠাসি করে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঝুঁকি নিয়েই নীড়ে ফিরছে তারা। এ যেন ঈদের আমেজ!

তথ্য মতে, করোনা প্রতিরোধের অংশ হিসেবে সরকার মঙ্গলবার থেকে সারাদেশে সেনাবাহিনী মাঠে নামিয়েছে। জনসমাগম এড়াতে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। মূলত জনসমাগম এড়াতেই টানা ১০ দিনের ছুটি ঘোষণা করা হলেও মানুষ উল্টো ছুটি কাটাতে দলে দলে বাড়ি আসছেন।

চিথলিয়া মোড়ে লেগুনা গাড়ির যাত্রী বকশিগঞ্জের রাহেলা বানুর সাথে আলাপকালে তিনি জানান, ম্যালা দিনের ছুডি (ছুটি) পরায় কাম নায় ঢাহা (ঢাকা), সেখানে ভাইরাস অসুখ আইছে তাই নিরাপদের লাইজ্ঞা গ্রামের বাড়িতে যাইতেছি।

চলার পথে কারো দ্বারা এ রোগে সংক্রমণ হতে পারেন বললে তিনি জানান, আমরা পরিশ্রমী মানুষ। সারাদিন কামকাজ করে পেটের ভাত যোগাড় করতাম সেখানে। এহন কাম করতে না পারলে খামু কি? তাই এহন কোনো নিয়ম দেহার সময় নায়। না খাইয়া কি ঢাহা(ঢাকা) থাহা যাইবো। এর লাইজ্ঞা ঠ্যালাঠেলি করে হইলেও বাড়ি যাইতেছি।

এদিকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ মোকাবেলায় জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমের পাশাপাশি শেরপুরে ভিড় ও জনযাতায়াত ঠেকাতে পুলিশ সুপার কাজী আশরাফুল আজীমের নির্দেশে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

বুধবার সকালে শহরের বটতলা মোড়, নয়ানী বাজার, কলেজ মোড়, খরমপুর, গোয়ালপট্টি, নিউ মার্কেট ও বিভিন্ন পাবলিক প্লেসেসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অভিযান চালায় সদর থানা পুলিশ।